মাটিরাঙ্গায় পল্লী চিকিৎসক হত্যার ঘটনায় আসামী গ্রেফতার না হওয়ায় পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের উদ্বেগ

 61 total views,  1 views today

নিউজ ডেস্ক

গত ১২ জুলাই খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার মাটিরাঙ্গায় নুর মোহাম্মদ টিপু নামের এক পল্লী চিকিৎসককে উপজাতি সন্ত্রাসী কর্তৃক বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে অপহরণের পর হত্যার ঘটনায় দীর্ঘ ২০দিন পরেও আসামী গ্রেফতার না হওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ।

১২ আগষ্ট বুধবার সকালে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক মোঃ লোকমান হোসেন কর্তৃক গণমাধ্যমে প্রেরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে দোষীদের অনতিবিলম্বে আইনের আওতায় আনার জোর দাবী জানান সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সভাপতি আলকাছ আল মামুন ভূঁইয়া। এসময় তিনি দ্রুততম সময়ের মধ্যে হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারের মাধ্যমে সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা না হলে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের পক্ষ থেকে পার্তব্যবাসীকে সঙ্গে নিয়ে কঠিন থেকে কঠিনতর আন্দোলন গড়ে তোলার হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করেন।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পার্বত্য চট্টগ্রামে বাঙ্গালি হত্যা নতুন কিছু নয়, এভাবে পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে বাঙ্গালি উচ্ছেদের নীলনকশা হিসেবে জেএসএস নেতা সন্তুু লারমা ও তার দোসর ইউপিডিএফ নেতা প্রসীত খীসার নেতৃত্বে পরিকল্পিতভাবে ৩০ হাজার বাঙ্গালীকে খুন করা হয়েছে। শীঘ্রই এ খুনীদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা না করলে ওদের দৌরাত্ম্য আরো বেড়ে গিয়ে তারা পার্বত্য চট্টগ্রাম বাঙ্গালি শূণ্য করার পাঁয়তারা করবে।

এসময় নেতৃবৃন্দ, সরকারের কাছে পাহাড়ের ঝুকিপূর্ন এলাকাগুলোতে সেনা ক্যাম্প স্থাপন করে নিরাপত্তা বৃদ্ধিসহ ইতোপূর্বে পাহাড়ে উপজাতি সন্ত্রাসীদের হাতে নির্মমভাবে হত্যা, অপহরণ ও ধর্ষণের শিকার প্রত্যেককে সরকারিভাবে ক্ষতিপূরন প্রদানসহ সকল হত্যাকান্ডের সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন।

উল্লেখ্য, গত ২৪ জুলাই ভোর আনুমানিক ৪ ঘটিকার সময় খাগড়াছড়ি জেলাধীন মাটিরাঙ্গা উপজেলার ১০ নম্বর সাপমারা নামক এলাকার বাসিন্দা ও মাটিরাঙ্গা বাজারের পল্লী চিকিৎসক নুর মোহাম্মদ টিপুর বাড়িতে তিনজন অপরিচিত উপজাতি যুবক এসে এক প্রসুতি নারীর চিকিৎসার কথা বলে বাড়ি থেকে নিয়ে গিয়ে অপহরণের পর নির্মমভাবে হত্যা করে পাহাড়ী ছড়ার পাশে লাশ ফেলে রেখে যায়।

Share this:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *