একজন সচেতন নাগরিকের আকুতি

 64 total views,  1 views today

ওসমান সরওয়ার

করোনা ভাইরাস সারা বিশ্বে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা স্থবির করে ফেলেছে। জীবন নাকি দৈনন্দিন জীবিকা, আলোচনা চলছে সর্বত্র। চীন থেকে শুরু হয়ে এই ভাইরাসের মরণ ছোবলে ইউরোপ-আমেরিকার মতো দেশ আজ দিশেহারা। পৃথিবীর প্রায় সকল দেশেই এই মরণঘাতি ভাইরাস হানা দিয়েছে, বাংলাদেশও বাদ যায়নি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী করোনা ভাইরাস মোকাবেলাকে একটি যুদ্ধের সাথে তুলনা করেছেন। তিনি বলেছেন, ‘করোনা ভাইরাস মোকাবেলা একটা যুদ্ধ, আমরা সকলের প্রচেষ্টায় এই ‍যুদ্ধে জয়ী হবো ইনশাল্লাহ।’ তিনি নিজেও এই যুদ্ধে সামিল। তিনি বসে নেই। বীরদর্পে একজন সফল রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে আপামর জনসাধারণকে প্রতিনিয়ত উদ্বুদ্ধ করে যাচ্ছেন। ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে চিকিৎসক, প্রশাসন, মিডিয়ার পাশাপাশি সশস্ত্র বাহিনীসহ সকল আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে দিয়ে চলেছেন যথাযথ নির্দেশনা। তার এই যুদ্ধে আমাদের সকলের ঐক্যমত পোষন করে সামিল হওয়া উচিত।

৭১’এ মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে জাতির পিতার ডাকে যেভাবে আপামর জনতা ঝাঁপিয়ে পড়েছিলো, সময় এসেছে তারই কণ্যার ডাকে সাড়া দেবার। চলুন আরেকবার যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ি ; যা উন্নত বিশ্ব করতে পারেনি তা আমরা করে দেখাই।

আমাদের সবাইকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দেয়া স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। সামাজিক দুরত্ব এবং হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করতে হবে। সরকার সময়ের প্রেক্ষিতে যে সকল নির্দেশনা দিচ্ছেন তা পালন করতে হবে। তবে এবারে সেনাবাহিনীর জন্য যুদ্ধটি একটু ব্যতিক্রমধর্মী।

বাংলাদেশ সরকারের নির্দেশনা মতে জনগনের বন্ধু বাংলাদেশ সেনাবাহিনী আপনাদের পাশে প্রত্যন্ত অঞ্চলে নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে। দেশের জন্য জীবন বিপন্ন করে কাজ করাই সেনা সদস্যদের প্রত্যয়। সেনাবাহিনী ‘সমরে আমরা, শান্তিতে আমরা, সবত্র মোরা দেশের তরে’ মূলমন্ত্রে বিশ্বাসী। সেনাবাহিনীর নেতৃত্বের কান্ডারি সেনা প্রধানের প্রত্যেক্ষ নির্দেশনায় সেনাবাহিনী অত্যন্ত উঁচু মনোবল নিয়ে এই কঠিন যুদ্ধে ঝাপি পড়েছে। সেনা প্রধান বলেছেন, ‘করোনা ভাইরাসকে প্রধানমন্ত্রী একটি যুদ্ধের সাথে তুলনা করেছেন এবং আমরা সৈনিক, আমরা সবসময় যুদ্ধ করতে প্রস্তুত। সেই প্রস্তুতি নিয়ে আমরা আছি সবাইকে সহযোগিতা করবো।’ সেনা প্রধানের ঘোষনার সাথে প্রতিটি সদস্য করোনার ভয়ে এক ইঞ্চি পিছু না হটার বলে বলীয়ান। এই যুদ্ধে তাদের জয়ী হতেই হবে, এই যুদ্ধ হতে তারা এক পা পিছু হটবে না। তারা আপনার কাছে, আপনার পরিবারের কাছে, জনগণের কাছে, সর্বোপরি সংবিধানের কাছে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। রক্তের শেষ বিন্দু দিয়ে হলেও যুদ্ধ জয় করতেই হবে।

তাই আপনাদের নিকট অনুরোধ, ডাক্তার, নার্স, মিডিয়া, প্রশাসন ও সশস্ত্র বাহিনীসহ সকল আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে সাহায্য করা। সকলে বদ্ধপরিকর হোন, যেন মুক্তিযুদ্ধের ন্যায় আপনি নিজেকে শামিল করে বিজয়ের মালা ছিনিয়ে আনতে পারেন। বাঙালি পারে না তা কি কখনো হয়েছে? এই যুদ্ধেও জয়ী আমরা হবোই, ইনশাল্লাহ।

Share this:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *